মধুর ৭টি অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা জেনে নিন

মধুর ৭টি অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা (Learn about the 7 unique health benefits of honey) - মধুর অন্য একটি গুণ হল এটি কখনো নষ্ট হয় না।
মধুর ৭টি অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা জেনে নিন

মধু হল এক প্রকারের মিষ্টি ও ঘন তরল পদার্থ। যা মৌমাছিরা উদ্ভিদের অমৃত থেকে তৈরি করে। এর মিষ্টিতা এবং গন্ধের গভীরতার জন্য বিশ্বব্যাপী প্রিয়। এই মধু অনেক খাবার এবং রেসিপিতে ব্যবহৃত হয়। মধুর গন্ধ, রঙ এবং স্বাদ বিভিন্ন ধরণের ফুল থেকে তৈরি হয়। 

মধু বিভিন্ন খাদ্য প্রস্তুতিতে এর ব্যবহারে চিনির চেয়ে এর অনেক বেশি সুবিধা রয়েছে। মধুর অন্য একটি গুণ হল এটি কখনো নষ্ট হয় না। হাজার বছরেও মধুর গুণাগুণ নষ্ট হয় না

এখানে রয়েছে মধুর ৭টি অনন্য স্বাস্থ্য উপকারিতা।

১। বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান রয়েছে (There are different types of nutrients)

মধু মূলত বিশুদ্ধ চিনি, এতে কোন চর্বি নেই এবং শুধুমাত্র প্রোটিন এবং ফাইবার রয়েছে। এটিতে অল্প পরিমাণে কিছু পুষ্টি রয়েছে, তবে বেশিরভাগ লোকেরা সাধারণত ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি উল্লেখযোগ্য খাদ্যতালিকাগত উৎস হওয়ায়র জন্য পর্যাপ্ত মধু গ্রহণ করেন না।

এক টেবিল চামচ (20 গ্রাম) মধুতে রয়েছে:-
  • ক্যালোরি: ৬১
  • চর্বি: ০ গ্রাম
  • প্রোটিন: ০ গ্রাম
  • কার্বোহাইড্রেট: ১৭ গ্রাম
  • ফাইবার: ০ গ্রাম
  • রিবোফ্লাভিন: দৈনিক মূল্যের ১% (DV)
  • তামা: DV এর ১%

২। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ (Rich in antioxidants)

উচ্চ মানের মধু - যা ন্যূনতম প্রক্রিয়া করা হয়, উত্তপ্ত এবং তাজা- অনেক গুরুত্বপূর্ণ জৈব সক্রিয় উদ্ভিদ যৌগ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। যেমন ফ্ল্যাভোনয়েড এবং ফেনোলিক অ্যাসিড। 

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আপনার শরীরের প্রতিক্রিয়াশীল অক্সিজেন প্রজাতি (ROS) নিরপেক্ষ করতে সাহায্য করে। যা কোষে জমা হতে পারে এবং ক্ষতির কারণ হতে পারে। এই ক্ষতি অকাল বার্ধক্যের এবং হৃদরোগের মতো পরিস্থিতিতে অবদান রাখতে পারে। 

মধুতে ফেনোলিক অ্যাসিড এবং ফ্ল্যাভোনয়েড সহ বেশ কয়েকটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে।

৩। নিয়মিত চিনির চেয়ে রক্তে শর্করার মাত্রার জন্য ভাল (Better for blood sugar levels than regular sugar)

যখন রক্তে শর্করার ব্যবস্থাপনার কথা আসে। তখন মধু নিয়মিত সেবনে চিনির তুলনায় কিছু সামান্য উপকার দিতে পারে। 

যদিও মধু অন্যান্য ধরণের চিনির মতোই আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায়। তবে এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি বিপাকীয় সিনড্রোম এবং ডায়াবেটিস থেকে রক্ষা করতে পারে।

গবেষকরা দেখেছেন যে, মধু অ্যাডিপোনেক্টিনের মাত্রা বাড়াতে পারে। একটি হরমোন যা প্রদাহ কমায় এবং রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ উন্নত করে। এমন কিছু প্রমাণও রয়েছে যে প্রতিদিন মধু খাওয়ায় ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে শর্করার মাত্রা উন্নত করতে পারে।

যাইহোক, যদিও মধু ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পরিশোধিত চিনির চেয়ে কিছুটা ভালো হতে পারে। কিন্তু পরিমাণ মতো ক্ষেতে হবে। 

এটা জানাও গুরুত্বপূর্ণ যে হালাল মধুকে সাধারণ সিরাপ দিয়ে মিশ্রিত করা যেতে পারে। যদিও অধিকাংশ দেশে মধুতে ভেজাল অবৈধ, এটি একটি ব্যাপক সমস্যা।

৪। হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি হতে পারে (May improve heart health)

মধু হৃদরোগ প্রতিরোধেও সাহায্য করতে পারে। একটি পর্যালোচনা অনুসারে, মধু রক্তচাপ কমাতে, রক্তে চর্বির মাত্রা উন্নত করতে, আপনার হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করতে এবং সুস্থ কোষের মৃত্যু রোধ করতে সাহায্য করতে পারে। এই সমস্ত কারণ যা আপনার হার্টের কার্যকারিতা এবং স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে।

কাঁচা মধুতে সাধারণত প্রোপোলিস থাকে। এক ধরনের রজন যা মৌমাছিরা রস উৎপাদনকারী গাছ এবং অনুরুপ গাছ থেকে উৎপন্ন করে। হার্টের স্বাস্থ্যের উপর মধুর প্রভাব আরও ভালোভাবে বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞরা বলছে আরও গবেষণা প্রয়োজন।

৫। পোড়া এবং ক্ষত নিরাময় প্রচার করে (Promotes burns and wound healing)

মধু প্রাচীন মিশন থেকে ক্ষত এবং পোড়া নিরাময় চিকিৎসা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রথাটি আজও প্রচলিত। ২৬টি গবেষণার পর্যালোচনায় দেখা গেছে মধু পোড়া ও ক্ষত নিরাময়ে সবচেয়ে কার্যকর।

মধু ডায়াবেটিস রোগের জন্য খুব কার্যকরী চিকিৎসা। পায়ের আলসার যা গুরুতর জটিলতা যা অঙ্গচ্ছেদ হতে পারে।

ডায়াবেটিস সম্পর্কিত পায়ের আলসারসহ একটি গবেষণায় ক্ষত চিকিৎসা হিসাবে মধু দিয়ে ৪৩.৩% সাফল্যের হার রিপোর্ট করা হয়েছে। অন্য একটি গবেষণায়, মধু গ্রহণকারীদের ৯৭% ডায়াবেটিস সম্পর্কিত আলসার নিরাময় করেছে।

তাছাড়াও এই মধু বিভিন্ন ধরনের ক্ষত থেকে রক্ষা করে থাকে। মধু ত্বকের অবস্থান চিকিৎসা করতে সাহায়তা করতে পারে।

৬। শিশুদের কাশি দমন করতে সাহায্য করতে পারে (May help suppress coughing in children)

উপরের শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণে আক্রান্ত শিশুদের জন্য কাশি একটি সাধারণ সমস্যা। এই সংক্রমণগুলি শিশু এবং পিতামাতা উভয়ের জন্য ঘুম এবং জীবনের মানকে প্রভাবিত করতে পারে।

যাইহোক, সাধারণ কাশির ওষুধ সবসময় কার্যকর হয় না। এতে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। মজার বিষয় হল, মধু একটি ভাল বিকল্প হতে পারে, প্রমাণিত যে এই বিষয়ে মধু একটি কার্যকর চিকিৎসা।

শিশুদের মধ্যে মধু এবং কাশির উপর বিভিন্ন গবেষণার একটি পর্যালোচনা পাওয়া গেছে। মধু কাশির লক্ষণগুলির জন্য ডিফেনহাইড্রামিনের চেয়ে বেশি কার্যকর বলে মনে হচ্ছে। এটি কাশি সময়কাল কমাতে সাহায্য করতে পারে।

অন্য একটি পর্যালোচনা উল্লেখ করেছে যে, এটি কাশিতে আক্রান্ত শিশুদের পাশাপাশি তাদের পিতামাতার মধ্যে ঘুমের গুণমানকেও উন্নত করতে পারে। উপরন্তু, কিছু কাশি ওষুধের বিপরীতে, মধুর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

যাইহোক, বোটুলিজমের ঝুঁকির কারণে ১ বছরের কম বয়সী শিশুদের কখনই মধু দেবেন না।

৭। আপনার খাদ্য যোগ করা সহজ (Easy to add to your diet)

মধু আপনার ডায়েটে যোগ করা সহজ। মধু থেকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলির একটি ছোট বৃদ্ধি পেতে আপনি এটি যে কোনও উপায়ে ব্যবহার করতে পারেন। যেভাবে আপনি সাধারণত চিনি ব্যবহার করেন। এটি সাধারণ দই, কফি বা চা মিষ্টি করার জন্য চমৎকার। আপনি এটি রান্না এবং বেকিং এ ব্যবহার করতে পারেন।

একটি ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে, এটি সরাসরি সামান্য পোড়া বা ক্ষতগুলিতে প্রয়োগ করা যেতে পারে বা কাশির জন্য মুখে দেওয়া যেতে পারে।

এছাড়াও, মনে রাখবেন যে মধু হল এক ধরণের চিনি। তাই এটি খাওয়ার ফলে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাবে। 

তাছাড়া, প্রচুর পরিমাণে মধু খাওয়া, বিশেষ করে দীর্ঘ সময় ধরে নিয়মিত, ওজন বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে। ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। অতএব, একটি কম থেকে মাঝারি ভাবে সেবন করুন।

আরও পড়ুনঃ


এই টপিক টি পুরোটা পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ, এই টপিক এর ভিতর কোন কিছু বুঝতে সমস্যা হলে আপনারা কমেন্ট করুন। আশা করি, উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। ধন্যবাদ ‍Amarload.com এর সাথে থাকার জন্য।