এফিলিয়েট মার্কেটিং: কি, কিভাবে শুরু করবো?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং কাজ করে? এবং এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কত টাকা আয় করা যাবে।
affiliate marketing

বর্তমান বিশ্বে এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) এর পরিমাণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এই এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) এর কারণে বড় বড় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম এরা বাড়তি আয়ের উৎস খুঁজে পেয়েছে। মনে করুন আপনার যদি এমন একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থাকে। তাহলে এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) এর মাধ্যমে আপনি বাড়তি আয়ের উৎস খুঁজে পেতে পারেন।

তাই, আপনি যদি এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) সম্পর্কে জানতে বা শিখতে চান তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। তাছাড়াও এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার কাজের দক্ষতা ও ইনকাম দুটোই করতে পারেন।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক, এফিলিয়েট মার্কেটিং কি, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে, এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে টাকা আয় করবেন, এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো,মোবাইল দিয়ে এফিলিয়েট মার্কেটিং ইত্যাদি বিষয়ে আমার জানবো।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? - What Is Affiliate Marketing?

এফিলিয়েট মার্কেটিং হল প্রতিটি বিক্রয়ের জন্য ছোট কমিশনের বিনিময়ে অন্য লোকের পণ্যের প্রচার করা। বিষয়টি সহজ মনে হলেও যথেষ্ট জটিল। সহজ করে বলতে গেলে, Affiliate Marketing হল নির্দিষ্ট কোনো ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা সেবা বিক্রয় ব্যবস্থা করে দিনশেষে কিছু নগদ অর্থ আয় করা। উদাহরণস্বরুপ: অ্যামাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং, ১০ মিনিট স্কুল এফিলিয়েট ইত্যাদি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে? - How Does Affiliate Marketing Work?

ইতিমধ্যেই আমরা এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) কি? এই সম্পর্কে জেনেছি। এখন আমরা জানবো, এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে?

প্রথমত পণ্য এর উৎপাদনকারীরা অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম তৈরির মধ্য দিয়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করে থাকেন। তারপর এফিলিয়েট মার্কেটারকে পণ্য প্রচার করার উদ্দেশ্যে একটি ইউনিক লিঙ্ক দেওয়া হয়। যখন ওই ইউনিক লিঙ্ক এর মাধ্যমে কোনো ক্রেতা পণ্য ক্রয় করে তখন ব্রাউজার কুকি’র মাধ্যমে সেলারকে তার সেল এর বিষয়ে জানিয়ে থাকে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটারকে তখন তার সেল এর বিনিময়ে একটি প্রাপ্ত কমিশন প্রদান করে থাকে। তাহলে আমরা এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে জানতে পারলাম।

কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন? - How To Get Started With Affiliate Marketing?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing) শুরু করতে হলে আপনাকে কয়েকটি স্টেপস এর মাধ্যমে কাজ শুরু করতে হবে। মনে রাখবেন, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ‍গুগল এডসেন্স (google adsense) এর চেয়ে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

১। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য কয়েকটি সেরা মাধ্যম রয়েছে। এগুলো হলো ব্লগ, ফেসবুক পেজ, ইউটিউব চ্যানেল, ভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া পেজ । কিন্তু একটা কথা মনে রাখবেন, ব্লগ, ফেসবুক পেজ, ইউটিউব চ্যানেল পর্যাপ্ত ভিজিটর এবং লাইক থাকতে হবে। কারণ অডিয়েন্স (audience) এগুলোর মাধ্যমে যেকোনো প্রোডাক্ট বা পণ্য মার্কেটিং করতে হয়।

২। এরপর আপনাকে ভালো একটি “Affiliate Network” বা “Affiliate Program” এর সাথে যোগ দিতে হবে। যোগ দেওয়ার পর আপনি কেমন পণ্য অডিয়েন্সদের সামনে প্রোমোট করতে ইচ্ছুক সেটা সিলেক্ট করুন। 

৩। এখন, ওই সিলেক্ট করা পণ্যে একটি affiliate link প্রদান করা হবে। তারপর ওই লিংক ব্লগ, ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক পেজ এগুলোর মাধ্যমে শেয়ার করতে পারবেন।

৪। শেয়ার করা পন্য অথবা প্রোডাক্ট এফিলিয়েট  লিঙ্কের মাধ্যমে যদি কেউ ক্রয় করে থাকে। Affiliate Network রা তাদেরকে ওই পণ্যের দাম অনুযায়ী কিছু কমিশন প্রদান করে থাকে।

৫। বর্তমানে আপনার যদি একটি স্মার্টফোন থাকে তাহলে আপনিও ফেসবুকে একটি পেজ তৈরি করে অ্যাফিলিয়েট পণ্যের লিংক শেয়ার করার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। দিন দিন স্মার্টফোনে এফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) এর পরিমাণ অনেক বেড়ে গেছে।

পরিশেষে বলতে পারি, উপরের কয়েকটি স্টেপস এর মাধ্যমে বলা হয়েছে যে আপনি কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন। অনলাইনে অনেক বড় বড় কোম্পানী রয়েছে তারা অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম চালু করেছে। যেমন:- দারাজ, ১০ মিনিট স্কুল অ্যাফিলিয়েট, বিডি সোপ ইত্যদি।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কত টাকা আয় করা যাবে?

বন্ধুরা একটু আগে আপনারা কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন এ সম্পর্কে জেনেছেন। এখন আপনারা জানবেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ঠিক কত টাকা ইনকাম বা আয় করা যাই। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

বর্তমানে বিশ্বে সব থেকে লাভজনক পদ্ধতি হল এফিলিয়েট মার্কেটিং। আর এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (affiliate marketing) দিন দিন ক্রমশই বৃদ্ধি পেয়ে যাচ্ছে। বন্ধুরা, এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আপনি কত টাকা ইনকাম করবেন সেটি সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing) এ আপনার যত বেশি দক্ষতা হবে তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন। শুধুমাত্র অ্যাফিলিয়েটই নয় যে কোন কাজে গেলে আপনাকে দক্ষতার সাথে কাজ করলে ইনকাম করা যায়। যাইহোক, আপনি যদি এফিলিয়েট মার্কেটিং টা একটু দক্ষতার সাথে করতে পারেন তাহলে monthly কয়েক হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

মনে করুন, আপনার একটি ব্লগ ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজ অথবা ইউটিউব চ্যানেল আছে। এক্ষেত্রে আপনি ব্লগ লিখে বা ভিডিও তৈরি করে আপনার ওয়েবসাইটে বা ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন।

আপনার ওয়েবসাইটে বা ইউটিউবে ভিজিটর বেশি হলে তখন আপনি কোনো এফিলিয়েট নেটওয়ার্কে যেয়ে নিজেকে রেজিস্টার করুন। তারপর তারা একটি ইউনিক লিংক প্রদান করবে আর সেই লিঙ্ক আপনার ব্লগ বা ইউটিউব চ্যানেলে প্রমোট করতে হবে। আর প্রমোট করলে সেগুলো ভিজিটদের সামনে প্রদর্শন হয়। তখন কোন ভিজিটর যদি আপনার ওই ইউনিক লিঙ্কের মাধ্যমে তা ক্রয় করে তখন আপনি কমিশন পাবেন। 

এক্ষেত্রে আপনার পন্যটির দাম যদি হয় ৫০০০ টাকা আর আপনাকে ২০% কমিশন দেওয়া হয় তাহলে ১০০০ টাকা পেয়ে যাবেন। এইভাবে ১০টি পন্য বিক্রি করতে পারেন তাহলে দ্বারায় ১০০০০ টাকা। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে মাসে ইনকাম দ্বারায় ১০০০০ টাকা।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে ইনকাম নির্ভর করে

  • কত দামি পণ্য আপনি মার্কেটিং করেছেন।
  • কমিশন হিসেবে প্রতি সেল এ আপনাকে কত টাকা কমিশন দেওয়া হচ্ছে।
  • অ্যাফিলিয়েট লিঙ্কের মাধ্যমে আপনি কতগুলো পণ্য সেল করেছেন।
  • আপনি যে পণ্যটি মার্কেটিং করছেন তার চাহিদা কেমন।
এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing) করতে আপনাকে এই জিনিসগুলো মনে রাখতে হবে। কারণ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর ইনকাম এগুলোর উপরই নির্ভর করে থাকে। পরিশেষে বলতে পাড়ি আপনি যদি একটু দক্ষতার সাথে বা বুদ্ধি খাটিয়ে এই কাজগুলি করতে পারেন তাহলে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।

জেনে রাখুনঃ

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিরে কত টাকা আয় করা যাবে এসব বিষয়ে আপনারা জেনেছেন। এখন আমরা জানবো বিখ্যাত কিছু অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম নিয়ে।

বর্তমানে অনেক কোম্পানি এফিলিয়েট প্রোগ্রাম (affiliate programs) চালু করেছে। এদের মধ্যে কোনো কোম্পানি ছোট আবার কোনো কোম্পানি বড়। আমি আপনাদের কয়েকটি বেস্ট অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম ওয়েবসাইট এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি তার মধ্যে আপনাকে চয়েজ করে নিতে হবে। আর এই ওয়েবসাইট গুলো বিখ্যাত এবং কমিশন খুব ভালো দিয়ে থাকে।

১। অ্যামাজন এফিলিয়েট প্রোগ্রাম - Amazon Affiliate Program

অ্যামাজন এফিলিয়েট প্রোগ্রাম

অ্যামাজন (Amazon) ভারতের সবচেয়ে বড় বা বিখ্যাত ই-কর্মাস প্লাটফর্ম। আপনি যদি এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করতে চান তাহলে এমাজন আপনার জন্য বেস্ট চয়েজ। বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠা হিসেবে অ্যামাজন একটি ভালো ওয়েবসাইট।

এক্ষেত্রে আপনি Amazon ওয়েবসাইটে গিয়ে নিচের দিকে গেলে দেখবেন Become an Affiliate তারপর আপনি ‍Sign up করে। ‍Sign up করা হয়ে গেলে,তাদের প্রোডাক্ট বা পণ্য প্রমোট করে অ্যাফিলিয়েট লিঙ্কের মাধ্যমে সেগেুলো সেল করুন এবং টাকা ইনকাম করুন।

২। ১০ মিনিট স্কুল অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম - 10 minute school affiliate Program

১০ মিনিট স্কুল অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম

10 minute school বর্তমানে বাংলাদেশে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনলােইনের মাধ্যমে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে ১০ মিনিট স্কুল। 

১০ মিনিট স্কুল বিনামূল্যে শিক্ষা আলো ছড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি তার affiliate marketing করার সুযোগ করে দিয়েছে। ১০ মিনিট স্কুলের বিভিন্ন ধরনের কোর্স রয়েছে। আর আপনি ওই কোর্স অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং মাধ্যমে সেল করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

১০ মিনিট স্কুলের প্রোডাক্ট:

  1. ঘরে বসে Spoken English
  2. Microsoft Excel
  3. ঘরে বসে Freelancing
  4. Graphic Designing with PowerPoint
  5. চাকরী জীবনের প্রস্তুতি
  6. প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা কোর্স
  7. সবার জন্য Vocabulary
  8. বিসিএস প্রিলি কোর্স
  9. অর্থসহ নামাজ শিক্ষা
  10. ফেসবুক মার্কেটিং

৩। এনভাটো অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম - Envato Affiliate Program

লক্ষ লক্ষ ডিজিটাল অ্যাসেট আনলিমিটেড ডাউনলোড, ইত্যাদি অনেক কম খরচে নিতে পারেন। এখানে আপনি গ্রাফিক, ওয়েব এবং ভিডিও টেমপ্লেট, অডিও, ফটো এবং আরও অনেক কিছু ডাউনলোড করতে পারবেন। 

এনভাটো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার সুযোগ দিচ্ছে। আপনারা এনভাটো থেকে  এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারবেন। এনভাটো সম্পর্কে আরও ভালোভাবে জানতে তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখতে পারেন।

৪। দারাজ অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম - daraz affiliate program

আপনারা হয়তো জানেন দারাজ (daraz) বাংলাদেশে কতটা জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বর্তমানে অনলাইন মার্কেট প্লেসে তারাই সেরা। দারাজেও এফিলিয়েট মার্কেটিং করার সুবিধা রয়েছে। আপনারা দারাজের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে গিয়ে নিজেকে রেজিষ্ট্রার করে মার্কেটিং শুরু করতে পারেন। দারাজের অ্যাফিলিয়েট সম্পর্কে আরও ভালোভাবে জানতে তাদের ওয়েবসাইট দেখতে পারেন।

এছাড়াও কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে এরা এফিলিয়েট মার্কেটিং এর ব্যবস্থা রেখেছে। সেগুলো নিচে লিস্ট আকারে দেওয়া হল।

৫। হোস্টগেটর এফিলিয়াতে প্রোগ্রাম - Hostgator affiliate Program
৬। ইবে এফিলিয়াতে প্রোগ্রাম - eBay affiliate program
৭। আলিএক্সপ্রেস অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম - AliExpress affiliate program

সর্বশেষ কিছু কথা 

বন্ধুরা, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং কাজ করে? কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন? এবং এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কত টাকা আয় করা যাবে? আশা করি বুঝতে পারছেন। আর কোথাও যদি বুঝতে না পাড়েন তাহলে কমেন্ট করুন। আশা করি, উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। ধন্যবাদ ‍Amarload.com এর সাথে থাকার জন্য।